দুর্দান্ত এই তাসকিন আহমেদ

এখনই ডেস্ক নিউজঃ
  • প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০২১, ৭:৩৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৩ মাস আগে

শ্রীলঙ্কার সাথে প্রথম টেস্ট ম্যাচেও তিনি ছিলেন সবার থেকে আলাদা। তবে দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচের প্রথম দিনে তার বোলিং দেখে মনে হয়েছিল শুধু এক টেস্টের জন্যই তিনি ফিরে এসেছেন। তবে তা নয়। আজ দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় দিনে তিনি জলে উঠেছেন আবার। কথা বলছি তাসকিন আহমেদের। ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেতে। ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের পর চট্টগ্রামের সেই ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তন হয় তাসকিন আহমেদের। এরপর নিউজিল্যান্ড সিরিজে তিন ওয়ানডেতে তিনিই ছিলেন দলের দলের সবচেয়ে ভীতি–জাগানিয়া বোলার। উইকেট শিকারের তালিকায় তাসকিনের পারফরম্যান্সের প্রতিফলন হয়তো সেভাবে নেই, কিন্তু নেতিবাচকতায় ভরা সেই সফরজুড়ে তাসকিনই সম্ভবত একমাত্র ইতিবাচক ‘আলো’।

দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে তার প্রথম শিকার সেঞ্চুরি করা ওপেনার লাহিরু থিরিমান্নে। প্রথম ঘণ্টায় ধীরে সুস্থে ব্যাটিং করা লঙ্কান ব্যাটসম্যানের সামনে হঠাৎই ভয়ংকর হয়ে উঠলেন তাসকিন। থিরিমান্নেকে নেয়ার পর তিনি থেকে থাকেন নি। থিরিমান্নেকে ফেরানোর সুখানুভূতির মধ্যেই আনন্দের উপলক্ষ এনে দেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে আউট করে। একসময় আবারও ওশাদা ও নিশাঙ্কা ধীরে ধীরে নিজের জুটিটি বড় করতে থাকে। তবে তখনই আঘাত হানেন তাসকিন। নিশাঙ্কাকে দারুণ এক বলে বোল্ড করেন তাসকিন। লঙ্কান ব্যাটসম্যান বুঝতেই পারেননি তাসকিনের বলটি।

বাংলাদেশ আজ এগিয়েছে, আর এই এগোনোর পিছনে মূল হোতা ছিলেন তাসকিন। ২০১৭ সালে অভিষেকের পর তাসকিন যেমন ভীত জাগিয়েছিলেন সব ব্যাটসম্যানদের মাঝে, ঠিক তেমনি ভাবে ফিরে এসেছেন তিনি এবার। লাল বল, সম্পূর্ণ পেসবিরুদ্ধ কন্ডিশন—এমন অবস্থায় তাসকিন কেমন করেন, কেমন মানসিকতা দেখান, কতক্ষণ গতি ধরে রাখতে পারেন, উইকেটের সাহায্য না থাকলেও অন্য কোনো দক্ষতা নিয়ে ব্যাটসম্যান আউট করতে পারেন কি না, এসবে কৌতূহলী দৃষ্টি ছিল অনেকের। কারণ সাদা জার্সিতে তাসকিনের সর্বশেষ স্মৃতি মোটেই ভালো ছিল না।

২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে তাসকিন বল করছিলেন ১২৫ থেকে ১৩০ কিলোমিটারের আশপাশে। চোট, অনিয়মে গতি হারিয়ে তাসকিন ছিলেন অসহায়। সেখান থেকে নিজেকে বদলে ফেলতে কঠোর পরিশ্রমের বিকল্প ছিল না। পরের দুই বছর জাতীয় দলের আশপাশে থাকলেও সুযোগ পাচ্ছিলেন না। নিজেও যে খুব বদলে গিয়েছিলেন তাও না। কিন্তু গত বছর করোনার সময়টায় নিজেকে নতুন করে আবিষ্কারের পণ করেন তাসকিন। আর সেই পণ কাজে দিয়েছে বর্তমান সিরিজে। এখন তাসকিন বল করেন ১৪০ কিলোমিটারের উপরে। বলে সুইং আর বাউন্সও আছে। এমনই একজন টেস্ট বোলারের প্রয়োজন ছিল বাংলাদেশের। এ যেন আগের তাসকিনকে ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশ।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

কারিগরী সহায়তায়: নি-টেক