পথেই ইফতার

এখনই ডেস্ক নিউজঃ
  • প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫:৩০ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৪ মাস আগে

লকডাউনে এমনিতেই রাস্তায় মানুষের চলাচল স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে কম। আর রোজার কারণে সন্ধ্যা ঘনাতেই রাস্তায় মানুষের সংখ্যা একেবারেই কমে যায়। রাজধানীর ফার্মগেটে সন্ধ্যা ৬টা বাজতেই দেখা গেলো একেবারেই নীরবতা। দুই-একটি গাড়ি চলছে, কিছু মানুষ রিকশায় বাড়ি ফিরছেন। মাগরিবের আজানের মিনিট দুয়েক আগে দেখা গেলো– কিছু রিকশাচালক, ফেরিওয়ালা আর কয়েকজন পথচারী ছাড়া কোনও মানুষ নেই। দূর থেকে ভেসে এলো আজান। কয়েকটি মোটরসাইকেল আর গাড়ি থামলো রাস্তার ধারে, চালক ইফতার করবেন।

 ইফতারের আগে ফাঁকা হয়ে যায় রাস্তাএকটি ব্যাংকের গাড়ি চালান মজিবর রহমান। ব্যাংকের কর্মীদের বাসায় পৌঁছে দিয়ে নিজে ফিরছিলেন অফিসে গাড়ি রাখতে। আজান হয়ে যাওয়ায় রাস্তায় গাড়ি থামালেন। সঙ্গে থাকা পানি আর খেজুর খেয়ে ইফতার সেরে নিলেন। মজিবর রহমান বললেন, ‘প্রতিদিনই বাসায় গিয়ে ইফতার করেন তিনি। তবে আজ দেরি হওয়ায় রাস্তায় ইফতার করতে হচ্ছে।’

 রিকশাভ্যানে বসে ইফতার করলেন তারাফার্মগেটে আনন্দ সিনেমা হলের সামনে আখের রস বিক্রি করেন আব্দুর রহমান। আজানের সময় অনেকেই পান করছেন আখের রস। কিন্তু রবিবার সন্ধ্যায় আব্দুর রহমান জানালেন, মানুষজন নাই, তাই বেচাবিক্রিও নাই।

 ইফতারিতে অনেকের পছন্দ আখের রস, কিন্তু আব্দুর রহমান আছেন ক্রেতা সংকটেরিকশাচালক আব্দুর রব মাতবর নিজের রিকশাতে বসেই ইফতার করছিলেন। তিনি থাকেন রাজধানীর লালবাগে। প্রতিদিন ঘরে ফিরে পরিবারের সঙ্গেই ইফতার করেন। তবে আজ বেশি দূরে চলে আসায় ঘরে ফেরা হয়নি তার। এ কারণেই রাস্তায় ইফতার করছেন।

 ইফতারের প্যাকেট একটি, কাকে রেখে কাকে দেওয়া যায়!লকডাউনে ইফতারি নিয়ে আগের মতো নেই আয়োজন। কিছু রেস্তোরাঁ ছাড়া ভ্রাম্যমাণ ইফতার বাজার এবার নেই। যদিও আগে  ইফতারির পসরা সাজিয়ে বসতেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইফতার বাজারেও ভিড় বাড়তো। ফার্মগেটে স্থায়ী দুই-  একটি রেস্তোরাঁতে ইফতারসামগ্রী বিক্রি করতে দেখা যায়।

ছবি: সাজ্জাদ হোসেন

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

কারিগরী সহায়তায়: নি-টেক